বিয়ের পর ছেলেদের যে ১০ টি পরিবর্তন ঘটে

বিয়ের পর মেয়েরা বদলায়, না ছেলেরা? আসলে ছেলে ও মেয়ে উভয়েই বিয়ের পর বদলে যায়। বিয়ের পর ছেলে ও মেয়ে উভয়েরই নানা দিক পরিবর্তন ঘটে। কিন্তু অনেকেই বিষয়টি মানতে চায় না। আসলে বিয়ের কারণে ছেলেদের মাঝে ইতিবাচক পরিবর্তনই বেশি ঘটে। যা সংসার জীবনে খুবই প্রয়োজন। বোল্ডস্কাই অবলম্বনে বিয়ের পর ছেলেদের পরিবর্তনের কিছু দিক তুলে ধরা হয়েছে।

১. গবেষণায় দেখা গেছে, বিবাহিত ছেলেরা অবিবাহিত ছেলেদের থেকে অনেক বেশি দায়িত্বশীল হয়। আর এই পরিবর্তনটি বিয়ের কারণেই ঘটে থাকে। সংসার, জীবনসঙ্গী সবকিছুর প্রতি তার দায়িত্ববোধ বেড়ে যায়।

৩. বিয়ের আগে ছেলেরা বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতেই বেশি পছন্দ করে। অথচ বিয়ের পর সেই একই মানুষ বউকে সময় দেওয়ার জন্য নানা অজুহাত খুঁজে বেড়ায়। যার ফলে বন্ধুদের কাছ থেকে সে অনেক দূরে সরে যায়। বিয়ে ছাড়া এই দূরত্বটা একেবারেই অসম্ভব।

৪. বিয়ের পর ছেলেরা টাকা জমাতে শুরু করে। এমনকি সবকিছু বাজেট করেই করার চেষ্টা করে। মোটকথা, বিয়ের পর ছেলেরা ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে অনেক কম খরচ করে।

৫. বিয়ের পর ছেলেরা সম্পর্কের মূল্য দিতে শেখে। কারণ নতুন সব পারিবারিক সম্পর্কে সে জড়িয়ে পড়ে। এই সম্পর্কগুলো আসলে বিয়ের কারণেই তৈরি হয়।

৬. বিয়ের পর ছেলেরা ধৈর্য ধরতে শেখে। কারণ অনেক ভিন্ন পরিস্থিতিতে তাকে পড়তে হয়। প্রচুর ধৈর্যশক্তি না থাকলে এসব পরিস্থিতি সামলানো তার পক্ষে সম্ভব হতো না। বিয়ে ছেলেদের ধৈর্যশীল করতে সাহায্য করে।

৭. বিয়ের পর ছেলেরা ঘরের কাজ করতে দ্বিধাবোধ করে না। বরং নিজের ইচ্ছায় স্ত্রীকে ঘরের কাজে সাহায্য করে। শুধু বিয়ে হলেই এই পরবির্তন আসা সম্ভব।

৮. সাধারণত ছেলেরা নিজেদের মধ্যে কথা লুকিয়ে রাখার চেষ্টা করে। অথচ বিয়ের পর সে সব ধরনের কথাই স্ত্রীকে বলে। কোনো কিছুই লুকায় না। বিয়ে না করলে ছেলেদের এই ইতিবাচক পরবির্তন হয় না।

৯. ছেলেরা বিয়ের আগে কোনো কাজ করলে কাউকে জিজ্ঞেস করার প্রয়োজন মনে করে না। অথচ বিয়ের পর তারা অনেকটা বদলে যায়। সবকিছু করার আগে স্ত্রীকে অন্তত জানিয়ে রাখার চেষ্টা করে।

১০. বিয়ের পর ছেলেরা যেকোনো বিষয়ে ত্যাগ করতে শেখে। নিজের শখ, ইচ্ছা সবকিছুকেই বিসর্জন দেওয়ার মতো মন মানসিকতাও তৈরি হয় ছেলেদের মধ্যে। তাই ‘বিয়ের পর ছেলেরা বদলে যায়’- এই কথাটি অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই।

Must Like and Share 🙂

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*