রোগ নিরাময়ে ডিমের খোসা! কোন কোন রোগে কীভাবে ব্যবহার করবেন জেনে রাখুন

কয়েকটি শারীরিক সমস্যা থেকে উপশম পেতে ডিমের খোসা ব্যবহার করা যেতে পারে।
শরীরের দূষিত রক্ত পরিশুদ্ধ করতে ডিমের খোসার কোনো বিকল্প নেই। বিজ্ঞানীরা বলছেন, ডিমের খোসা ক্যালসিয়ামের পরিপূরক। এটি শরীরের জন্য উপকারী আয়রন, ম্যাঙ্গানিজ, ফসফেরাস, জিঙ্ক, ফ্লুরিন, কপার ও ক্রোনিয়ামের বিশাল উৎস চলুন জেনে নিই- তিন ধরনের রোগ সারাতে ডিমের খোসার ভূমিকার কথা-

দাঁতের সুরক্ষায়
দাঁতের নানা ধরনের সমস্যা সমাধানে এক কার্যকরী উপাদান ডিমের খোসা। দাঁতের সুরক্ষায় যেভাবে ডিমের খোসা ব্যবহার করা যায়-
-১২টি ডিমের খোসা চূর্ণ করুন।

-এতে নারকেল তেল (পরিমাপ মতো) ও বেকিং সোডা মেশান।

-তা একটি ছোট মগে জমা করুন। এরপর প্রতিদিন সকালে মাজন হিসেবে ব্যবহার করুন।

-এটি নিয়মিত ব্যবহারে দাঁত হবে যেমন ঝকঝকে ও তকতকে, তেমনি ক্ষয় প্রতিরোধসহ নানা ধরনের রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।

রক্ত পরিশুদ্ধ করেঃ-
শরীরের দূষিত রক্ত পরিশুদ্ধ করতে ডিমের খোসার কোনো বিকল্প নেই। এটি শরীরের শক্তিও বৃদ্ধি করে। কিভাবে ডিমের খোসা খাওয়ার জন্য প্রক্রিয়াজাত করা যায় তা দেয়া হলো।-
-পাঁচটি ডিমের খোসা ধুয়ে পরিষ্কার করুন। তারপর সেগুলো ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র টুকরায় পরিণত করুন এবং ২-৫ লিটার পানিতে রাখুন।

-সাতদিন ধরে ওই মিশ্রণ ফ্রিজে রাখুন।

-এরপর তরল অংশটুকু আলাদা করে একটি পরিষ্কার পাত্রে রাখুন। প্রতিদিন দুই গ্লাস করে খান।

থাইরয়েড গ্রন্থির স্বাস্থ্যেঃ-
সাধারণত থাইরয়েড গ্রন্থি থেকে নিসৃত হরমোনের অভাবে মানুষ খাটো হয়, মানসিক সমস্যায় ভোগে। এরকম আরো সমস্যার সমাধানে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে ডিমের খোসা। এক কথায় থাইরয়েড গ্রন্থির স্বাভাবিক কাজ সচল রাখে ডিমের খোসা। এজন্য যেভাবে এটি ব্যবহার করতে হবে-

-১০টি ডিমের খোসা গরম পানি দিয়ে পরিষ্কার করুন এবং ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র টুকরায় পরিণত করুন।

-এতে ৫০ মিলিলিটার সতেজ লেবুর রস মেশান এবং তা চারদিন ধরে ফ্রিজে রাখুন।

-এরপর খোসা নরম হলে তা থেকে তরল অংশটুকু আলাদা করুন এবং এতে এক কেজি মধু ও এক লিটার প্রক্রিয়াজাত করা ফলের রস মেশান।

-এই মিশ্রন আবার ফ্রিজে রাখুন। তারপর প্রতিদিন খাবারের পরে দুই থেকে চারবার তিন চা চামচ করে খান।

Must Like and Share 🙂

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*